ক্যাসিনো ব্যবসার মাধ্যমে অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছেন দুই ভাই

Raja SaimonRaja Saimon
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  04:50 PM, 08 July 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা পুরান ঢাকার দুই ভাই এনামুল হক ভূঁইয়া ওরফে এনু ও রুপন ভূঁইয়ার দুই বাসা থেকে নগদ টাকা পাওয়া গেছে প্রায় ৩২ কোটি। আর দুই ভাইয়ের নামে ব্যাংকে পাওয়া গেছে ১৯ কোটি ১১ লাখ টাকা। এ ছাড়া এই দুই ভাইয়ের ফ্ল্যাট পাওয়া গেছে ১২৮টি। পুলিশের অপরাধ ও তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) তদন্তে এই তথ্য উঠে এসেছে।

সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজিম উদ্দিন মিডিয়াকে বলেন, ‘পুরান ঢাকার আলোচিত ক্যাসিনো ব্যবসায়ী এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা অর্থপাচারের চারটি মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষ হয়েছে। যে কোনো সময় তাঁদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হবে। আমাদের তদন্তে উঠে এসেছে, পুরান ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে এনামুল ও রুপন ভূঁইয়ার নামে ১২৮টি ফ্ল্যাটের খোঁজ মিলেছে। আর ব্যাংকে এই দুই ভাইয়ের ১৯ কোটি টাকা পাওয়া গেছে। ক্যাসিনো ব্যবসার মাধ্যমে অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছেন এই দুই ভাই।’

সিআইডির কর্মকর্তা নাজিম উদ্দিন জানান, ক্যাসিনো ব্যবসায়ী এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে সিআইডি বাদী হয়ে আরও একটি মামলা করবে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এনামুল হকের এক আত্মীয় মিডিয়াকে বলেন, ক্যাসিনো ব্যবসা করে এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়া যত টাকা আয় করেছেন, তা দিয়ে পুরান ঢাকায় অনেক পুরোনো বাড়ি, জমি ও ফ্ল্যাট কিনেছেন।

গত বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়াদের পুরান ঢাকার বানিয়ানগরের বাসায় এবং তাঁদের দুই কর্মচারীর বাসায় অভিযান চালায়। সেখান থেকে পাঁচ কোটি টাকা এবং সাড়ে সাত কেজি সোনা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় সূত্রাপুর ও গেন্ডারিয়া থানায় তাঁদের নামে ছয়টি মামলা হয়। পরে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়াদের পুরান ঢাকার লালমোহন সাহা স্ট্রিটের বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। ওই বাড়ি থেকে ২৬ কোটি ৫৫ লাখ ৬০০ টাকা জব্দ করা হয়। আর ৫ কোটি ১৫ লাখ টাকার এফডিআরের কাগজপত্র পাওয়া যায়। সোনা পাওয়া যায় এক কেজি। এই ঘটনায় দুই ভাইয়ের নামে আরও দুটি মামলা হয়।

অন্যদিকে, দুর্নীতি দমন কমিশনও এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা করে। মামলায় এনামুলের বিরুদ্ধে ২১ কোটি ৮৯ লাখ ৪৩ হাজার টাকার আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়। আর রুপন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে ১৪ কোটি ১২ লাখ ৯৫ হাজার ৮৮২ টাকার আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়।

দুদকের পরিদর্শক আশিকুর রহমান মিডিয়াকে জানান, ক্যাসিনো কারবারি এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় এখনো আদালতে কোনো প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়নি।

এনামুল ও রুপন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে ক্ষমতাসীন দলের পদ কেনার অভিযোগ রয়েছে। এনামুল হক গেন্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ছিলেন, আর রুপন ভূঁইয়া ছিলেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এনামুল ও রুপন ভূঁইয়া গ্রেপ্তার হয়ে এখন কারাগারে আছেন।

আপনার মতামত লিখুন :