নাটকিয় ডাকওয়ার্থ-লুইস, নিউজিল্যান্ডের কাছে টি-২০ সিরিজেও হার টাইগারদের

সিলেটের আলোসিলেটের আলো
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  March 30, 2021

ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে টার্গেট নিয়ে ‌‘নাটক’ হলো। প্রথমে শোনা গেল, বৃষ্টির কারণে ১৬ ওভারে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১৪৮ রান। সেই লক্ষ্য মাথায় নিয়ে ব্যাটিংয়েও নেমে গিয়েছিল টাইগাররা। ১.৩ ওভারে দলের রান যখন বিনা উইকেটে ১২, তখনই খবর এলো-লক্ষ্য ভুল হয়েছে। ডাকওয়ার্থ পদ্ধতিতে জিততে হলে ১৬ ওভারে করতে হবে ১৭১ রান।

নেপিয়ারে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে এমন ‘ভজকট’ এক অবস্থায় দাঁড়িয়েও দারুণ শুরু করেছিল বাংলাদেশ। মোহাম্মদ নাইমকে সঙ্গে নিয়ে একটা সময় আশা জাগিয়ে তুলেছিলেন সৌম্য সরকার। প্রথম দশ ওভারে বাংলাদেশ তুলে ১ উইকেটে ৯৪ রান।

৩৬ বলে তখন টাইগারদের দরকার ৭৬। হাতে উইকেট আছে, চালিয়ে খেললে অসম্ভব নয়। কিন্তু ১০ ওভার পার হতেই রানের চাপে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল সফরকারিদের ইনিংস।

শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটে ১৪২ রানে থামলো বাংলাদেশ। ডাকওয়ার্থ লুইসে ২৮ রানে হেরে এক ম্যাচ বাকি থাকতেই নিউজিল্যান্ডের কাছে টি-টোয়েন্টি সিরিজটা খুইয়েছে টাইগাররা।

১৭১ রানের লক্ষ্য সামনে রেখে দারুণ ব্যাটিং করেন সৌম্য। ২৫ বলে তুলে নেন ফিফটি, ৫ চার আর ৩ ছক্কায়। কিন্তু ১১তম ওভারের প্রথম বলেই টিম সাউদিকে তুলে মারতে গিয়ে লংঅনে ক্যাচ হন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। এরপরই বাংলাদেশের বিপদ শুরু।

নাইম সেভাবে বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ছুটতে পারছিলেন না। সৌম্য ফেরার পর এক ওভার বিরতি দিয়ে তিনিও সাজঘরে ফেরেন ৩৫ বলে ৩৮ রান করে। এরপর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১২ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ২১ রানের ছোট একটা ইনিংস খেলেছেন। কিন্তু দলকে এগিয়ে নেয়ার দায়িত্ব পালন করতে পারেননি কেউই।

আফিফ হোসেন (২), মোহাম্মদ মিঠুন (১), সাইফউদ্দিনরা (৩) রানের চাকা ঘুরাতে পারেননি। শেষদিকে মেহেদি হাসান ৬ বলে ১ ছক্কায় ১২ রানে অপরাজিত থাকেন। যদিও ততক্ষণে দলের হার নিশ্চিত হয়ে গেছে।

এর আগে দারুণ বোলিংয়ে ১১১ রানের মধ্যে কিউইদের ৫ উইকেট তুলে নিলেও গ্লেন ফিলিপস আর ড্যারেল মিচেলকে আটকাতে পারেননি বাংলাদেশি বোলাররা। ফিলিপস ৩১ বলে ৫৮ আর মিচেল ১৬ বলে ৩৪ রানে অপরাজিত থাকেন।

মেহেদি হাসান ২ উইকেট নিতে ৪ ওভারে খরচ করেন ৪৫ রান। একটি করে উইকেট নেন সাইফউদ্দিন, তাসকিন আহমেদ আর শরিফুল ইসলাম। সাইফউদ্দিন ৩ ওভারে ৩৫ আর তাসকিন ৩.৫ ওভারে দেন ৪৯ রান।

এর মধ্যে শরিফুল যথেষ্ট ভালো বোলিং করেছেন। আগের ম্যাচে মার খাওয়া তরুণ এই পেসার ৩ ওভারে আজ দিয়েছেন মাত্র ১৬ রান। এছাড়া নাসুম আহমেদ উইকেট না পেলেও ছিলেন মিতব্যয়ী, ৪ ওভারে দেন ২৫ রান।

আপনার মতামত লিখুন :